ঢাকার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত ব্রাহ্মনবাড়িয়া জেলার কসবা উপজেলার ছাত্র-ছাত্রীদের দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্নের বাস্তব প্রতিফলন হিসেবে, একটি ছাত্র কল্যাণ পরিষদ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে কসবা উপজেলার ছাত্র-ছাত্রী এবং বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে ঢাকার ন্যাশনাল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে একটি আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। উক্ত সভায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আশরাফ উদ্দিনকে আহবায়ক করে ১৪ সদস্য বিশিষ্ট একটি আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়। উক্ত আহবায়ক কমিটি দীর্ঘ ৪৫ দিন অক্লান্ত পরিশ্রম করে। অবশেষে লালিত স্বপ্নের বাস্তব প্রতিফলন হিসেবে ডিসেম্বর ২০১৪ খ্রিষ্টাব্দে ২২৫ উর্ধ্ব ছাত্র-ছাত্রী এবং বিশিষ্ট ব্যক্তি বর্গের উপস্থিতিতে আত্মপ্রকাশ ঘটে ‘ঢাকাস্থ কসবা ছাত্র কল্যাণ পরিষদের’। উক্ত তারিখে সবার সম্মতিতে ২৫ সদস্যবিশিষ্ট একটি কার্যকরী কমিটি ঘোষণা করা হয়। শিক্ষা, ঐক্য, কল্যাণ এই তিনটি মূলনীতিকে সামনে রেখে আত্মপ্রকাশের পর থেকেই ‘ঢাকাস্থ কসবা ছাত্র কল্যাণ পরিষদ ছাত্র-ছাত্রীদের কল্যাণের নিমিত্তে কাজ করে আসছে। এরই ফলশ্রুতিতে বিভিন্ন গঠনমূলক ক্যাম্পেইন যেমন বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ণয়, রক্তদান কর্মসূচী, দুঃস্থ শীতার্থদের মাঝে কম্বল বিতরণ, বনভোজন আয়োজন, ইফতার মাহফিলের আয়োজন, গরীব মেধাবীদের আর্থিক প্রণোদনা দান এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিচ্ছু ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে সেমিনার আয়োজন ইত্যাদি।

কসবার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ এবং ঢাকায় অবস্থানরত ছাত্র-ছাত্রীদের উপস্থিতিতে ঢাকা ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে একটি পুনর্মিলনী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, ৪ঠা নভেম্বর ২০১৬ তারিখে অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে সর্বসম্মতিক্রমে “Student Association of Kasba in Dhaka” নামকরণ করা হয়। এরই মাধ্যমে পুনরায় আমাদের সবার একসাথে পথচলা শুরু হয়।